পাওয়া গেল আরেক সানি লিওন

দেখা মিললো নতুন সানি লিওনের! ভারতের সঙ্গীত তারকা মিকা সিংয়ের সঙ্গে একটি মিউজিক ভিডিওতে কাজ করার কথা ছিল সানি লিওনের।কিন্তু সানি লিওনের সময় না থাকায় এতে কাজ করেন আবীরা সিং। মিকা সিংয়ের সেই মিউজিক ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল তাকে। দেখতে অবিকল সানি লিওনের মতো। তার ছবি এবার প্রকাশ্যে আসতেই রীতিমত হইচই শুরু হয়েছে তাকে নিয়ে।

এর আগে ‘জখম’ নামের একটি পাঞ্জাবি মিউজিক ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল আবীরাকে। মিকা সিংয়ের মিউজিক ভিডিওটি মুক্তির পর আবীরাকে সানি লিওনের যমজ বলে ডাকতে শুরু করেন অনেকে। তার ইনস্টাগ্রামে চোখ রাখলেও সানি লিওনের মতো সাজপোশাকে ছবি দেখা যায়।

সম্প্রতি পাকিস্তানে পাওয়া গেছে হুবহু ঐশ্বরিয়ার মতো দেখতে একজনকে। তার নাম আমনা ইমরান। নেট দুনিয়ায় আমনার ছবি ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয় জোর আলোচনা। এবার সে আলোচনায় যুক্ত হলো আবীরার নাম। সূত্র: জি নিউজ। আরও পড়ুন : বহুল আলোচিত জামালপুরের সাবেক ডিসি আহমেদ কবীরকে বেতন গ্রেড কমিয়ে শাস্তি দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ অনুযায়ী গুরু দণ্ড হিসেবে শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, নিম্নপদ বা নিম্নবেতন গ্রেডে অবনমিতকরণ, বাধ্যতামূলক অবসর, চাকরি থেকে অপসারণ ও চাকরি থেকে বরখাস্ত। সাবেক ডিসিকে সবচেয়ে কম শাস্তি অর্থাৎ বেতন গ্রেড কমানোর শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, নিম্নপদে নামিয়ে দেওয়ার শাস্তি দেওয়া হলে তিনি বিদ্যমান বেতনই পেতেন। আর বেতন গ্রেডের শাস্তি দেওয়ায় তার বেতন অর্ধেক কমে গেল তবে তিনি বিদ্যমান পদেই বহাল থাকবেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা-২০১৮ এর বিধি ৪(৩)(ক) মোতাবেক গুরুদণ্ড হিসেবে ০৩(তিন) বছরের জন্য নিন্মবেতন গ্রেডে অবনমিতকরণ করা হলো। আহমেদ কবীর উপসচিব হিসেবে বর্তমানে ৫ম গ্রেডে বেতন পান। শাস্তির কারণে এখন থেকে তিনি ২০১৫ সালের জাতীয় বেতন স্কেল অনুযায়ী ৬ষ্ঠ গ্রেডের সর্বনিম্ন ধাপের বেতন পাবেন।

অর্থাৎ একজন সিনিয়র সহকারী সচিব পদোন্নতি পাওয়ার পর যে বেতন পান আহমেদ কবীর এখন সেটা পাবেন। পঞ্চম গ্রেডে তিনি মূল বেতন প্রায় ৭০ হাজার টাকা। এখন থেকে তিনি মূল বেতন পাবেন ৩৫ হাজার টাকা। সঙ্গে এই গ্রেডের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ অন্যান্য ভাতা-সুবিধা পাবেন।

এর আগে জামালপুরের ডিসি হিসেবে কর্মরত থাকাকালে একই অফিসের অফিস সহায়ক সানজিদা ইয়াসমিন সাধনা নামে একজন নারীর সঙ্গে আহমেদ কবীরের আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর বিষয়টি জানাজানির পর ব্যাপকভাবে সমালোচনার মুখে তাকে ডিসি পদ থেকে প্রত্যাহার করা হয়।